• সুদীপ্ত বিশ্বাস

দুইটি কবিতা




বাউল

একলা বেশ তো আছি,একলা থাকাই ভালো

দুপুরে ডিস্কো নাচি, রাতে পাই চাঁদের আলো।

কোনো এক নিঝুম দুপুর, কিংবা গভীর রাতে

মনে আর পড়েই না তো,টান দিই গঞ্জিকাতে।

পরোয়া করব কেন? সমাজটা দিচ্ছে বা কী?

ছোট্ট জীবন আমার, তাইতো নাচতে থাকি।

পলকা এই জীবনে, কী হবে দুঃখ এনে?

চল্ না উড়াই ঘুড়ি, সুতোতে মাঞ্জা টেনে।

লাফিয়ে পাহাড় চড়ে, সাঁতরে নদীর বুকে

কবিতা দু'এক কলি আসলে রাখছি টুকে।

এভাবে কাটছে তো দিন,তোমাকে আর কী খুঁজি?

জানিনা কোথায় তুমি, আমাকে ভাবছো বুঝি?

ভাবলে কী হবে আর, নদীতে জল গড়ালে

চাঁদটা বন্ধু আমার, গভীর এই রাত্রিকালে

গাছেরা আগলে রাখে, পাখিরা গাইতে থাকে

ঘরে আর যায় কী ফেরা? ওই যে বাউল ডাকে !



রাত




জেগে বসে আছি রাতের গভীরে একা।গোটা পৃথিবীটা ঘুমে

আকাশের বুকে অনেক তারার মেলা,কিছু লোক চ্যাটরুমে

সম্পর্ক তৈরিতে এখনও ভীষণ ব্যস্ত।ওড়ে রাতচরা পাখি

শাল-পিয়ালের আধো ঘুমে ভেজা ডালে।কবিতায় লিখে রাখি

ছলাৎ-ছলাৎ শব্দে নদীটা এগোয়, সাগরের অভিসারে

পাহাড় চূড়াটা একাএকা জেগে থাকে এ রাতের অন্ধকারে

লাজুক চাঁদটা গাঁয়ের বধূর মতো ঘোমটায় মুখ ঢাকে

দু'একটা পাতা খসে যায় চুপিসারে, কেই বা হিসেব রাখে?

বনের গভীরে নিশাচর ছুটে যায়, রাতের শিশির ঝরে

খুব মমতায় পৃথিবীর সারা গায়ে। মনে পড়ে মনে পড়ে

হারানো সেসব বাঁধাবাঁধি করে বাঁচা, সুরেসুরে বাঁধা তার

গভীর গভীর অজানা অলীক দেশে প্রেম ভরা অভিসার...

নীড়বাসনা  বৈশাখ ১৪২৯