• সৌমি জানা

প্রবন্ধ - ‘বাড়িতে থাকুন, সুস্থ থাকুন’! - লকডাউন মহিলাদের জন্য নির্মম প্রহসন'





আপাতত সংক্রমণ তুঙ্গে থাকলেও লকডাউন নেই। যথাযথ নিরাপত্তা নিয়ে বেরোনোয় বাধা নেই। কিন্তু কিছু মাস আগে মাত্র ৪ ঘন্টার নোটিশে জারি করা হয়েছিল লকডাউন। দাওয়াই দেওয়া হয়েছিল- বাড়িতে থাকুন, সুস্থ থাকুন। কিন্তু এই আবেদন, থুড়ি, নির্দেশটা মেয়েদের জন্যে একটা 'স্ট্যান্ডিং অর্ডার', সে করোনা থাক বা না থাক! মেয়েরা কাজে বেরিয়ে হোক বা স্কুল-কলেজে যাওয়ার পথে ধর্ষিতা হলে বা নির্যাতিতা হলে চরম অত্যাচারের পর তাদের ছিন্নভিন্ন লাশ এখানে ওখানে পড়ে থাকলে প্রশ্ন ওঠে কেন বেরিয়েছিল মেয়েটি! বিজেপি তথা আর এস এস নেতারা তিরস্কারের সুরে সেই নির্দেশ বিভিন্ন জন বিভিন্ন ভাবে ঝালাই করেন একান্ত উপযাচক হয়ে। বিজেপির পতাকা বা ভারতের জাতীয় পতাকা নিয়ে মহিলাবিরোধী এবং নির্যাতনকারীর পক্ষে মিছিলও করেন। যতই হোক সমাজটাকে তো উচ্ছন্নে দেওয়া যায় না!

মেয়েদের কাছে এর থেকে ব্যঙ্গাত্মক কি আর কিছু আছে?

ফোন করুন, মেসেজ করুন বা রেডিও শুনুন- “বাড়িতে থাকুন, সুস্থ থাকুন’ শ্লোগান ইচ্ছানিরপেক্ষ ভাবেই শুনতে হচ্ছে । কিন্তু সত্যিই কি তাই? অতিমারির ভয়ে, করোনার ভয়ে আমরা বাধ্য হয়েছি বাড়িতে থাকতে। কিন্তু সেই বাড়িতেই অন্য এক অতিমারি থাবা বসিয়েছে মহিলাদের ও মেয়ে শিশুদের উপর। পাল্লা দিয়ে বেড়েছে গার্হস্থ্য হিংসা এবং পারিবারিক নির্যাতন। শুধু কলকাতা নয়, ভারত নয়, সারা পৃথিবী জুড়ে, প্রত্যেকটি ঘরে ঘরে অতিমারির আকার ধারণ করেছে পারিবারিক নির্যাতন। সেজন্য করোনা অতিমারিকে ‘শ্যাডো প্যান্ডেমিক’ আখ্যা দিয়েছে ‘ইউএন উমেন’।

যদি অতিমারির পূর্বের অবস্থাই ধরা যায়- ভারতে গার্হস্থ্য হিংসার শিকার হন প্রায় ২৯ শতাংশ মহিলা (ন্যাশনাল ফ্যামিলি হেলথ সার্ভে ৪), আট থেকে আশি, সমস্ত ধরণের মহিলা থেকে শুরু করে শিশু কন্যা কেউই বাদ নেই এই পরিসংখ্যানে। ২০১৮ সালের ন্যাশনাল ক্রাইম রেকর্ড ব্যুরোর রিপোর্ট বলছে প্রতিদিন ভারতে ২৮ জন মহিলা এই গার্হস্থ্য হিংসার জেরে প্রাণ হারান। কিন্তু দিনের শেষে দেখা যায় মেয়েটির উপরেই বর্তায় সমস্ত দোষ- ‘মেয়েটি মানিয়ে নিতে পারেনি’, ‘স্বামী সংসার ছেড়ে অত বন্ধুবান্ধব কিসের?’ বা ‘অল্প বয়সে পাকলে বাবা মা মারবে না তো কি পুজো করবে?’ ইত্যাদি ইত্যাদি। গা সওয়া হয়ে গেছে যেন আমাদেরও। যতক্ষণ না আরও বীভৎস, আরও শোচনীয় হয় অত্যাচার আমাদের শিরদাঁড়া বেয়েও আর প্রতিবাদের স্রোত নামে না সেভাবে।

‘৫ টার আগে বাড়ি না ফিরলে এসব ছোটোখাটো ঘটনা ঘটবেই’, ‘অত রাতে কি করছিল একা মেয়েটি বাইরে?’- এসব শুনতে শুনতে আমরা অভ্যস্ত হয়ে গেছি একরকম। যেন এটাই জীবন মেয়েদের। ভালো মেয়েদের জীবন। এবং বাড়িই সবথেকে যেন নিরাপদ মেয়েদের। লকডাউন চোখে আঙ্গুল দিয়ে ভাঙ্গিয়েছে সেই ভুল। প্রশ্ন আগেও ছিল কিন্তু লকডাউন জ্বলন্ত প্রমাণ যে মেয়েরা বাড়িতেই নিরাপদ কথাটা কতটা ভুল। লকডাউনের পর সারা বিশ্বে পারিবারিক নির্যাতন বেড়েছে ২০-৭০ শতাংশ। জাতীয় মহিলা কমিশন জানাচ্ছে মার্চ-এপ্রিলের সঙ্গে তুলনা করলে এপ্রিল-মে মাসে অর্থাৎ লকডাউন শুরুর পর গার্হস্থ্য হিংসার মাত্রা বেড়েছে দ্বিগণ। লকডাউন শুরুর পর থেকেই ঘর বন্দী মেয়েরা। আর সেই বাড়িতেই নির্যাতনকারী থেকে শুরু করে শিশু সহ পরিবারের সকলে। ফল? মেয়েদের উপর বেড়েছে গৃহকর্ম তথা সেবাযত্নের বোঝা। যেহেতু মেয়েদের ছোট থেকেই বাড়ি সামলানো, সেবা যত্ন এগুলোকেই তার মূল ভূমিকা হিসেবে শেখানো হয়। তথাকথিত ভালো মেয়ের ধাঁচা। পাল্লা দিয়ে লাফিয়ে লাফিয়ে বেড়েছে নির্যাতন ও হিংসা। আর নির্যাতনকারী যেহেতু ২৪ ঘণ্টা বাড়িতেই উপস্থিত সেহেতু অভিযোগ জানানো, সাহায্য চাওয়া- এসব দুরস্ত হয়ে উঠেছে মেয়েদের জন্য। আর অভিযোগ জানালেও আরও করুণ হচ্ছে পরিস্থিতি। উল্টে বাড়ছে নির্যাতন। ছিনিয়ে নেওয়া হচ্ছে প্রয়োজনীয় তথ্যাদি যেমন- রেশন কার্ড, ভোটার কার্ড ইত্যাদি। বাড়ি থেকে বের করে দেওয়া বা সেই সংক্রান্ত হুমকি, সন্তানদের কেড়ে নেওয়া এসব তো আছেই। অনেকেই বলবেন বিবাহিত মহিলাদের ক্ষেত্রে বাপের বাড়ি চলে এলেই তো সমস্যা মিটে যায়। কিন্তু বাস্তব চিত্রটা অন্য। প্রথমত এই মানিয়ে নেওয়ার গল্প, স্বামীর ঘরই ঘর- এগুলো মেয়েরা পরিবার নামক প্রতিষ্ঠান থেকেই শেখে। বাবা মা ও অংশ সেটার। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে বাবা মা-ই বাধ্য করছেন আবার মেয়েদের ফিরে যেতে নির্যাতনকারীদের কাছে, সেই একই মানিয়ে নেওয়ার গল্প। আর লকডাউনে আর ভয়ানক পরিস্থিতি তৈরি করেছে কাজ চলে যাওয়া। অনেকক্ষেত্রে বাবা মা চেয়েও হয়ত রাখতে পারছেন না মেয়েদের কারণ খাওয়ানোর সঙ্গতি নেই। আবার মেয়েরা যারা নিজের পায়ে দাঁড়িয়ে নিজেরটুকু উপার্জন করত সেই সংস্থানও হারিয়েছে এই লকডাউনে। সরকারি তরফ থেকে চালু করা হয়েছিল হেল্পলাইন। কিন্তু উপার্জনই যেখানে নেই, পেটের খাবার জোটানোই দায় যেখানে সেখানে ফোনে রিচার্জ করে কি করে অভিযোগ জানাবেন মহিলারা? তাহলে কি সরকারি পরিষেবা, পুলিশ প্রশাসন এগুলো শুধুমাত্র সমাজের সুবিধাভোগী উচ্চবিত্ত শ্রেণীর জন্য? ‘শারীরিক দূরত্ববিধি’ না বলে প্রচার করা হয়েছিল ‘সামাজিক দুরত্ববিধি’। মানুষের মনে তৈরি করা হয়েছিল ভীতি। এমনিতেই পারিবারিক নির্যাতনের ক্ষেত্রে ‘ছোটোখাটো’ পারিবারিক বিষয়, মানিয়ে নিতে হয় বলে এড়িয়ে যান চারপাশের সমাজ, প্রতিবেশীরা। মানতেই চাওয়া হয়না এটা পারিবারিক নয় সামাজিক সমস্যা। সেখানে এই ‘দূরত্ববিধি’ সংক্রান্ত ভীতির ফলে যেটুকু সাহায্য প্রতিবেশীদের থেকে পাওয়া যেত সেটাও বন্ধ করে দিয়েছে লকডাউন। ফলে শারীরিক, মানসিক ও আর্থিক নির্যাতন এক বীভৎস আগ্রাসী রূপ ধারণ করেছে এই লকডাউনে। যেসমস্ত মহিলারা বেরিয়ে আসতে চেয়েছেন তাদের কাছে সুরক্ষিত আশ্রয় পাওয়াটাই বড় চ্যালেঞ্জ। সম্পত্তিতে মেয়েদের অধিকার কোনোকালেই স্বীকৃত নয় আমাদের এই পুরুষতান্ত্রিক সমাজে। তারা জানে তারা বেরিয়ে গেলেও বাবা মা আবার ফেরত পাঠাবেন। সেখানে দাঁড়িয়ে এমনিতেই দেশে শেলটার হোমের সংখ্যা অপ্রতুল। তার উপর করোনা ভীতি ও সংক্রমনের ভয়ে হোমগুলি লকডাউন পরিস্থিতিতে নতুন কোনও আবাসিক নিতে চায়নি। একই অবস্থা পুলিশ, প্রশাসনের। একেই যানবাহন বন্ধ, ২৪ ঘণ্টা নির্যাতনকারীও উপস্থিত বাড়িতে। এই সমস্ত বাধা পেরিয়ে যেসব মহিলারা অভিযোগ জানাতেও গেছে তাদেরও অনেকক্ষেত্রে সংক্রমণের ভয়ে ফিরিয়ে দেওয়া হয়েছে থানা থেকে, পরামর্শ দেওয়া হয়েছে নিজেদের মধ্যে মিটিয়ে নেওয়ার জন্য।

বর্তমানে কিছুদিন হল আনলক প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। কর্মরত মহিলাদের ক্ষেত্রে এমনিতেই লকডাউনে দ্বিগুণ বোঝার কাজ করেছে।পরিবারের সমস্তকিছু সামলেও তাদের অফিস বা কর্মজীবন সামলাতে হয়েছে। কারণ বেশিরভাগ মহিলাদেরই বাড়িতে নিজের মত করে সময় কাটানো বা নিজের জায়গা বলে কিছু থাকে না। পুরুষতান্ত্রিক অধিকারবোধ সেই স্পেস মেয়েদের দেয়না। ফলত ওয়ার্ক ফ্রম হোম করতে হলে যে স্পেসের প্রয়োজন সেটা মহিলাদের ক্ষেত্রে নেই। অর্থাৎ একদিকে পারিবারিক নির্যাতন বা সেই সংক্রান্ত সেই সংক্রান্ত মানসিক চাপ আর অন্যদিকে কর্মজীবন! আনলক শুরু হওয়ার পরও সেই পর্বের পুরোপুরি অবসান হয়নি। বরং লকডাউনে এক অদ্ভুত প্রত্যাশা তৈরি হয়েছে মহিলাদের প্রতি যা আনলক হওয়ার পরও অব্যাহত যে যাই করুক, যেখানেই যাক পরিবারের দ্বিগুন চাপ সামলেই করতে হবে। সঙ্গে দৃঢ় হয়েছে 'ঘরটাই মেয়েদের জন্য' এই ধারণা। ফলত আরও কঠিন হয়েছে অধিকারের, স্বাধীনভাবে বাঁচার লড়াই।


গার্হস্থ্য হিংসা আগেও ছিল কিন্তু লকডাউনের ফলে আরও প্রকাশ্যে এসেছে অবাধ গার্হস্থ্য হিংসার চিত্র। সঙ্গে বেরিয়ে পড়েছে মহিলাদের জন্য নির্ধারিত ‘সাপোর্ট সার্ভিস’ গুলোর নগ্ন রূপ। ‘কন্যাশ্রী’, ‘বেটি বাঁচাও, বেটি পড়াও’ এগুলো যে আদপে ধাপ্পা ছাড়া কিছুই নয় এবং মহিলা ক্ষমতায়ন যে আদপে সেই তলানিতেই রয়েছে আরও একবার চোখে আঙ্গুল দিয়ে দেখিয়েছে লকডাউন। মেয়েদের পারিবারিক সম্পত্তি ভাবা এবং প্রয়োজন অনুযায়ী উপার্জনের কাজে ব্যবহার করা- এই নির্মম পুরুষতান্ত্রিক ভাবধারাকে আবারও প্রমাণ করেছে লকডাউন। নারী স্বাধীনতা, ব্যক্তি স্বাধীনতা, নিজের শরীর ও মনের উপর নিজের অধিকার বা নির্ভয় স্বাধীনতা এখনও সেই তলানিতেই। তাই এই লকডাউন থেকে শিক্ষা নিয়েই ভবিষ্যৎ লড়াই ও মহিলা অধিকারের প্রশ্নে সোচ্চার হতে হবে, সোচ্চার হতে হবে প্রশাসনিক প্রহসন ও প্রক্রিয়গুলোর চরম নিষ্ক্রিয়তার বিরুদ্ধে।





নীড়বাসনা আষাঢ় ১৪২৮