• অভিষেক চৌধুরী

কবিতা – অনিত্যের যন্ত্রণা

ভাবতে অবাক লাগে,

কোন জনহীন কলরবে জেগে ওঠা মৃতপ্রায় আত্মগ্লানী

খিলখিল করে কটাক্ষ ক’রে।

এ জন্মের দীর্ঘ প্রতিশ্রুতি

মরা-অভিমান বুকে নিয়ে

কালো কালো ছোপছোপ প্রেতাত্মার মতো

মহাশূন্যে ভেসে বেড়ায়

তার মান নেই, রীতি নেই

নেই কোনো অস্তিত্ব।

কিন্তু তা সত্ত্বেও সময়ের অগ্রগতি তার গলা টিপে ধরে

তার মাথায় করে প্রবল আঘাত।

ভাবতে অবাক লাগে,

উচ্ছৃঙ্খল পশুর শোকদগ্ধ হাহাকারে

উপত্যকার পাথরপিণ্ডে ধরেছে ফাটল।

কিন্তু তাতে তার হাজারবর্ষব্যাপী প্রতিক্ষায়

নেই কোনো ফাঁকি বা দ্বেষ।

ভাবতে অবাক লাগে

মানুষের সৃষ্ট নীতি পুরুষোত্তম কে অতিক্রম করে

দেবতা-নামের কল্পনিক entity কে

সমস্ত দুরাচার-দুর্ভাগ্যের নিঃসহায় অনুলেখক বানিয়ে দেয়।

যে শরীর বড় একা,

তাতে যন্ত্রণা হওয়া কোনো দোষের নয়

নিরীহ প্রাণীর আবার বলির জন্য অনুমতি নেওয়া!!

যে যুদ্ধে নিজের রক্তের কোনো অঙ্গীকার নেই

সে বড় সস্তা,

যেন ধোঁয়ার কুণ্ডলীর উপর নিরর্থক অন্যাজ্য মায়া

নিষ্ঠুর সময়ের নিদারুণ দংশনে masochist হলেই অপরাধ...

পুরুষের কাছে প্রকৃতি যখন বীভৎস্য,

তখন আত্মহননের অপবাদ চোখে চোখ রেখে

কালিমাখা নখে মাংস খুবলে নেয়

অজস্র স্বপ্ন যখন অজানা ওপারে দাঁড়িয়ে

ফিচেল হাসি হেসে নিঃশব্দে ঘন-ঘন বিদ্রূপ করে

তখন আয়নায় নিজের মুখ চেনা যায়না...

নীড়বাসনা আষাঢ় ১৪২৮