• বিমল দত্ত

এক গুচ্ছ ছড়া


পাতার ছড়া

গাছের পাতা, গাছের পাতা হাওয়ায় নড়েচড়ে, চোখের পাতা, চোখের পাতা আপনি ওঠে-পড়ে। বইয়ের পাতা, বইয়ের পাতা যাচ্ছে বেড়ে বেড়ে... খাতার পাতা, খাতার পাতা লিখতে গেলেই ছেঁড়ে! কুচিয়ে নিয়ে শাকের পাতা--- চচ্চড়িটা বাড়ে, মাথায় কারও হাতের পাতা ভয়-ভাবনা কাড়ে। পায়ের পাতায় সুড়সুড়িতে খাচ্ছে ঘুমের মাথা, বর্ষা এলেই হারিয়ে যাবে অনেকগুলো ছাতা!

ছোটবেলায়

ছোটবেলায় সব বাচ্চাই বেকুব থাকে ব'লে, সবাই মিলে শেখায় তাদের--- "কিলিয়ে বুদ্ধি খোলে!" বাড়তে বাড়তে গজায় মগজ দাঁত গজানোর মতো, গোঁফ গজানোর সময় অবধি হয় না বুদ্ধি তত। দাদা হলে একটু পাকে, কাকা হলে আরও... বাবা-মায়ের মতন বুদ্ধি হয় না তো আর কারও! বাবাও শুনি বাচ্চা ছিল, মা-ও ছিল খুকি, এই কারণে, বোকা হয়েও এখন আমি সুখী।

ক খ গ

'ক' দিয়ে হয় কাঁসাই নদী 'খ'-এ খড়্গপুর। 'গ' দিয়ে গাঁয়ে গিয়েছিলাম, মন তবু ঘুরঘুর। 'ক'-টা কেমন একলা আছে, 'ড়'-টা 'গ'-এর ঘাড়ে, আমাদের 'পুর' নয় বেশি দূর, মেদিনীপুরের পারে। 'খ'-এ চিনি খড়্গপুর, আর সূর্য চিনি লালে, জ্যাঠার যত জ্যাঠামিও বাড়ছে কালে কালে।

নীড়বাসনা আষাঢ় ১৪২৮