• নমিতা মজুমদার

কবিতা – বালাসোন নদীটি

শোন শোন বালাসোন পাহাড়িয়া নদীটি,

দিন রাত ছুটে চলে চঞ্চলা সখীটি।।

পরনে সবুজ নীল চিকনের শাড়িতে,

চিক চিক রূপো টিপ এঁকে দিল বালিতে ।।

সকালে মোহন নীল দুপুরেতে রুপোলী

বিকেলে বেগুনি লালে রাঙায় যে গোধূলি ।।

ছল ছল নেচে চলে দিন রাত সন্ধ্যে

চরণে নুড়ির মল সুর তোলে ছন্দে।।

পাড়ে বসে ছেলেমেয়ে ছিপ নিয়ে হাতে

মনে আশা ছোট মাছ তাতে এসে গাঁথে।।

নদীই জোগায় রুজি, খুশী গ্রামবাসীরা

মাঝধারে নুড়ি ভাঙ্গে গাঁয়ের ই বধূরা।।

আদুড় শিশুটি ছোটে ছাগলের পিছু

চরায় গাভীরা চরে করে মাথা নিচু।।

বর্ষায় বালাসোন হয় মাতোয়ারা

দুকূল ছাপিয়ে যায় ক্ষর জলধারা।।

কিছুতেই বোল্ডারে বাঁধা নাহি যায়

গ্রামবাসী সচকিত পাড় ভাঙ্গে হায়।।

সেই নদী শীতকালে শীর্ণ শীতল

মাঝবুকে জড়ো হয় ট্রাকেদের দল।।

পাথর বোঝাই ট্রাক নদী পাড় হয়

নিজ বেগে তির তির নদী বয়ে যায়।।

প্রতি প্রাতে পূবাকাশে সূর্য উদয়

পশ্চিম আবিরে রাঙা প্রতি সন্ধ্যায়।।

অনন্ত কাল ধরে চলা অবিরাম

অন্তহীন চলাই তো জীবনের নাম।।

নীড়বাসনা আষাঢ় ১৪২৮