• কৌশিক মণ্ডল

কবিতা - বনধু কথা


বন্ধু আমার

ছোট্টবেলার!

কোথায় দূরে?

আয় না ফিরে,

বন্ধু হব

আরেকবার!

দুজন মিলে, করব খেলা, সারা বেলা

হাটে মাঠে, পথে ঘাটে, ঘুরব মেলা

ভাঙ্গব কিছু, গড়ব কিছু, এটাই খেলা

চড়ব গাছে, ছুটব মিছে, মারব ঠেলা

বালি পাথর, পোকামাকড়, নিয়েও খেলা

খুঁজব কিছু, বুঝব কিছু, এটাও খেলা

বলুক সবাই, নাওয়া খাওয়ায় অবহেলা

দুজন মিলে, করব খেলা, সারা বেলা

খেলার শেষে, আরেক খেলা, সন্ধ্যা বেলা

যখন গায়ে, মাখব আকাশ, জ্যোৎস্না ঢালা

মেঘ সাগরে, ভাসিয়ে দেব, চাঁদের ভেলা

রাত চাদরে, সাজিয়ে দেব, তারার মালা

ভাসবে চাঁদ, জাগবে তারা, এটাও খেলা!

বন্ধু আমার

স্বাধীনতার!

বাঁধন ছিঁড়ে,

আয় না ফিরে,

স্বাধীন হব

আরেকবার!

ঘুরব সাইকেলে চড়ে, যেন পক্ষীরাজে উড়ে

ছাড়িয়ে যাবো, চার দেওয়ালের, গণ্ডি ছেড়ে

বেড়াব গেয়ে, সুর মিলিয়ে, হাওয়ার সুরে

লাগাম ছাড়া, মুক্তি গানে, ভুবন ভরে

বস্তা ভরা, শেখানো কথা, তুড়ি মেরে

হাত পুড়িয়ে, বাঁচতে শিখব, নতুন করে

লড়ব লড়াই, বদলে দেবার, স্বপ্ন ঘিরে

অগ্নি শপথ, নতুন স্বদেশ, নেব গড়ে!

ঘুরবে চাকা, ঘুমের ঘোরে, পক্ষীরাজে উড়ে

এমন দেশটি, পাবো খুঁজে, মেঘের ওপারে

যেথা, সবাই সমান বাঁচতে পারে, প্রাণ ভরে

ভিন্ন পথে, তবু চলতে পারে, হাত ধরে

যেথা, সবাই ধন্য, ধন ধান্যে পুষ্পে ভরে!

বন্ধু আমার

স্বপ্ন দেখার!

তন্দ্রা ছেড়ে,

আয় না ফিরে

দেখব স্বপ্ন

আরেকবার!

একটি হয়ে, দুটি প্রানে, খুঁজব জীবনের মানে

যেমন চাঁদের টানে, সাগর খোঁজে বাঁচার মানে

মান অভিমান মিলিয়ে মনে, মিলব গভীর আলিঙ্গনে

উল্লাসেতে, উঠব মেতে, জীবন জোয়ার আসবে প্রানে

করব সৃষ্টি, স্বপ্ন বৃষ্টি, কথায় সুরে, ছন্দে গানে

অষ্ট প্রহর, জাগব বাসর, বিরহের মিলন দিনে

চোখের তারায়, গুনব তারা, রাখব চোখে, সযত্নে

লুকাবে তারা, চাঁদ ঘুমালে, রাত্রিদিনের সন্ধিক্ষণে!

একটি হয়ে, দুটি প্রানে, খুঁজব জীবনের মানে

লাগবে দোলা, কোন অসীমে, প্রাণের ছোঁয়া লাগলে প্রাণে

উঠবে ঢেউ, অন্তহীনে, চাঁদ-সাগরের ঐকতানে

জাগবে প্রাণ, আগামী গানে, আরেক ভোরের আহ্বানে

হয়ত সেই গানে, নেব জেনে, জীবনের মানে!

বন্ধু আমার

ভালোবাসার!

বিদেশ ছেড়ে,

আয় না ফিরে,

বন্ধুকথায়

একটিবার!

নীড়বাসনা আষাঢ় ১৪২৮