• দীনেশ

অক্টোবরের কবিতা

ঘনীভূত সিঁড়ি আমাকে জারজ-সন্ধ্যায় এনে দাঁড় করায়

দুজনের তরবারি দুজনের মরদেহ রচনা করে

বোতামগুলো খুলে দাও

বদ্ধ বদ্ধ সময়

বদ্ধকাল আলিঙ্গনে পুড়িয়ে নিতে হয়

শুশ্রূষার পারদ চড়ানোর আর দরকার নেই

বাতাসগুলো হাল্কা হোক

চারপাশের বাতাস অচেনা গন্ধে ভারী হয়ে আসে

চোখের থেকে চোখে লাফায়

অবিশ্বাসের রোদ

আমার পরিণত বিষ

ঢেলে দিই

অসুস্থ বাতাসে।

তোমার অনাড়ম্বর বাগান --- পাহারা দেয়

অভিজ্ঞ রোদ।

এই কবর নয়-

তোমার মূলত্রাণ ছড়িয়ে ছড়িয়ে দাও

অন্য মহাকাশে।

সাঁতার সব সরিয়ে রাখি ডাঙার থেকে দূরে

শিরোনামে কেবল এসো শরীর সংবাদ

পৃথিবী তোর বংশধর ------

জোগাড় করে আন,

এমনি জ্বলে যাবি ?

নিজের মরা চেতনালোক আর

মরা মরা বডি

ভেলায় নিয়ে ভেসে আছি

তোর বংশধরের বাতাস এনে দে ।

লোভনীয় শব্দেরা গাবিন রোদের নীচে

গোপন সাঁতার লিখে রাখে ।

তোমার সঙ্গে দেখা হলে

আকাশগুলো মহাকাশ হয়ে যায়

বুকের বন্ধ দেরাজ থেকে বোতামগুলো

সাবলীল ডানা মেলে দেয় ।

আমার পুরনো মৃতদেহের পাশে

নতুন মৃতদেহ ভেসে যায়

আমি ছুঁয়ে থাকি মৃত জল,দেহ,বোধ।

নীড়বাসনা আষাঢ় ১৪২৮