• মধুমিতা চক্রবর্তী

তোমাকেই প্রিয়তম


তোমাকেই প্রিয়তম....(এক)

প্রিয়তম,

আজ তোমাকে জানাতে চাই কিছু কথা , রাত্রির নিস্তব্ধ বুকে এখন টিপেটিপে সামান্য কয়েকটি নক্ষত্র , চন্দ্রহীন আকাশে মিশে আছে রূপোলী আতর--- মন খারাপের এক ভালোলাগা পৃথিবীর মনের গহনে, আমরা যাকে লালন করেছি করেছি এবং করেই চলেছি আমরা দুটি অক্ষম আত্মা,আমরা খুবই ক্লান্ত , যদিও প্রেমে আবেগে মাৎসর্যে বাৎসল্যে পরিপূর্ণ দুটি সত্তা আমরা , আমরা কিছু করতে চেয়েছিলাম, যেমন আমরা চেয়েছিলাম আল্পসে জ্বালবো ভালোবাসার মোমবাতি, ধূসর পিরামিডে বানাবো চাঁপা ফুলের বাগান, ফুটপাথ শিশুটিকে ভাসাবো রামধনু রং বেলুনে , অনাহারী প্রান্তবাসীর কাছে তুলে ধরবো দুমুঠো অন্নের আশ্বাস , কিন্তু, বিশ্বাস করো , হেরে গেছি , শত চেষ্টা করেও পারিনি, বোধহয় চেষ্টাই করিনি তেমনভাবে, আমাদের গোটা শরীর ছেয়ে এখন এলোমেলো অসুখ , প্রতিপার্শ্বের দিকে তাকাতেও পারি না , চারিদিকের অস্তিত্ব বাঁচছে মরছে এমনকি নিজেদের জ্যান্ত গিলছে , আমাদের গতি কি এবার সরীসৃপের যুগে বুকে হেঁটে অগ্রসর হয়ে পরস্পরকে গ্রাস করার দিকে??? তোমাকেই প্রিয়তম....(দুই) প্রিয়তম,

এখন তুমি কোথায় আছো ? এই ঘনশ্যাম অন্ধকারে আমার মেঘরাশি

কেশদামের অন্তরালে নিজেকে ঢাকছো ? চেয়ে দেখো....

কী অপরিসীম ভালোবাসায়

ভেজা ছিল আমাদের মর্মার্ত বেদনা.....

তাকে বহন করে নিয়েও কিন্তু

হারিয়ে ফেলিনি কোনো আঁধার কিংবা জোছনা ..... আজ খুঁজে ফিরি হলাহলের জারক রসে

নিমজ্জিত সেই প্রবাল-সিন্ধু .... সেই কি আমাদের অন্তরাত্মার প্রকৃষ্ট জলবিন্দু ? কিংবা হারিয়ে যাওয়া কোনো সুবর্ণ দ্বীপ.....

যার মহাসিন্ধু দিগন্তকে ছুঁয়ে আছে অফুরন্ত ভালোবাসার অন্তরীপ, আমাদের বয়োবৃদ্ধ কলেবরের শিরায় শিরায় বয়ে চলে এক অবিরাম- প্রবাহ ,

পৃথিবীর যাবতীয় অপার্থিব ভালোবাসা রঙিন রুমাল উড়িয়ে দেয় তাতে,

সেই রুমালের কোন প্রান্ত ছোঁব আমি? বৃথা চেষ্টা এক ....

অপচেষ্টা বরং.... অধ্যবসায় তোমার দিকেই ধেয়ে যায় .....

অন্ধকার ঘনীভূত হয় .... ঘৃণায়.....

ভালোবাসায়.....

আর চুম্বনের স্রোতে ....... তোমাকেই প্রিয়তম....(তিন) প্রিয়তম..

সমুদ্রতটের বালুকাভূমি থেকে বলছি ...

অলৌকিক ঘণ্টার সন্ধানে এখানে আসা...

সূর্য গিয়েছে পশ্চিমে....

পাখিরা এখন নীড়মুখী ....

অস্তমিত দিনের সূর্যমুখী আমি--

খুঁজছি তোমায়, প্রিয়তম...

অপরাধ বোধের মর্মপীড়ণ থেকে উঠে আসা আমার এই দিনলিপি ....,

পৃথিবীর ছায়াপ্রান্ত থেকে দূরে ...

তোমায় ছেড়ে এ আমি কোথায় এলাম ?

আমার চারপাশে শুধু নির্মেঘ আকাশ.....

একঘেয়ে আলো.....

আর একমুখী ঢেউ .... আমার দৃষ্টি অস্বচ্ছ....

চিন্তার স্রোত মহাশূন্যে কাটা ঘুড়ির মতো....

দূর পৃথিবীর শান্ত হাতছানি চোখে স্বপ্ন কাজল পড়ায়....

চুপিচুপি কানে কানে বলে 'আস্থা রাখো ;মানুষের বিনাশ অত সুনিশ্চিত নয়'.....

চরাচরে কোথাও সেই দুর্জয় প্রাণ-টঙ্কারের সাবলীল হস্তলিপি আমাকে খোলা চিঠি পাঠায়, না...

অবিনাশী কোনো অস্তিত্বের ছায়া আমার মাথার ওপর ছাতার মতো নেই.....

সেই আরামদায়ক সময় কখনো আসবে কিনা তা ও জানিনা...... শুধু মনের গহনে অনস্বর বিলাপ শুনতে পাই ---------- 'কাঁটার ভয়ে সহিষ্ণুতার গোলাপ ফুল তোমরা কেউ স্পর্শ করলে না' অস্থির পৃথিবী , অপরাহ্ণ ঘন হয় , মানুষ বাঁচে --রক্তে মাংসে আর বিচিত্র বিশ্বাসে

নীড়বাসনা আষাঢ় ১৪২৮