• মৌমিতা পাল

অনুবাদ আলোচনা - ওসলোতে কথোকপথন

প্রখ্যাত আমেরিকান সাহিত্যিক এবং অনুবাদক লিডিয়া ডেভিস এর সাক্ষাৎকার সাক্ষাৎকার নিয়েছেন - আনড্রিয়া আগিউলার এবং জোহান্ ফ্রনথ নাইগ্রেন ২০১৩ সালে নরওয়েজিয়ান- আমেরিকান সাহিত্য উৎসবে জোহান্ ফ্রনথ নাইগ্রেন প্রখ্যাত আমেরিকান লেখিকা লিডিয়া ডেভিসের অনুবাদক ছিলেন। লিডিয়া ডেভিসের সাক্ষাৎকারটির শুরু ২০১৩ সালের, সেপ্টেম্বর মাসে ওসলো তে ঐ নরওয়েজিয়ান- আমেরিকান সাহিত্য উৎসবে, জোহান ফ্রনথ নাইগ্রেনর সাথে কথোপকথন হিসেবে। তার ঠিক আগের দিনই ডেভিস এর সাথে জোহান এর প্রথম সাক্ষাত, জোয়ানের ওপর দায়িত্ব বর্তে ছিল ডেভিসকে নরওয়েজিয়ান ভাষায় হাতখড়ি দেওয়ার।

জোহান কথোপকথন শুরু করেন – কথা শুরু হওয়ার খানিকক্ষণের মধ্যেই বিড়াল, বাগান এবং পরিবার নিয়ে আমাদের আলোচনা শুরু হয়, আর সবটাই কিন্তু নরওয়েজিয়ান ভাষায়। সেই বিড়াল, বাগান, পরিবারের আলোচনা সঙ্গে করেই আমরা আজ স্টেজে এসে পৌঁছেছি।

তাঁদের এই কথোপকথন তারপরের বসন্ত পযর্ন্ত চলে দুটি পর্যায়ের মধ্যে দিয়ে। একটি ফ্রনথ নাইগ্রেন এর সাথে আর একটি স্প্যানিশ সা্ংবাদিক অ্যান্ড্রিয়া আগুয়িলার সাথে। দু’জন ডেভিসের বাড়ি যান যেটিকে লিডিয়া এবং তার স্বামী বিখ্যাত চিত্রশিল্পী অ্যালান কোট একটি স্কুল বাড়িতে রূপান্তরিত করেছিলেন।



ফ্রন্ট-নাইগ্রেন দৃশ্যের বর্ণনা দিয়েছিলেন: " উল্টোদিকের জমিতে যে গাভীগুলি চরছে ডেভিস হয়ত ‘The Cows’ এ তাদের কথাই লিখেছেন । হয়ত বা তিনি যে দুটি গরু নিয়ে লিখেছিলেন তাদের জবাই করে তাদের পরিবর্তে এই নতুন গরুগুলিকে আনে হয়েছে বা তৃতীয় যে গরুটি সেদিন জবাইয়ের জন্য যাওয়ার জন্য ভ্যানে প্রবেশ করতে অস্বীকার করেছিল, সেইটি এখনও মাঠে চারণ করছে। বড় ইটের ভবনের অভ্যন্তরে, তিনটি বিড়াল পাথুরে সিঁড়ি বেয়ে ওঠা নামা করছে, খেলা করতে করতে ক্লান্ত হয়ে এলিয়ে পড়ছে লম্বা শ্রেণিকক্ষের জানালার নীচে সূর্যের আঁকা বর্গক্ষেত্র গুলিতে।" উভয় সাক্ষাত্কারকারীই ডেভিসের আতিথেয়তার প্রশংসা করে তাঁকে একজন করুণাময়ী এবং বিবেকবান বলে বর্ণনা করেছেন। অ্যাগুইলারের ক্ষেত্রে, ডেভিস কোটকে আলবানী স্টেশনে তুলে দিতে যাওয়ার পথেও প্রশ্ন ও উত্তর অব্যাহত ছিল এবং যখন তারা জানতে পারেন ট্রেনটি বিলম্বিত হয়েছিল, তখন ডেভিস অ্যাগুইলারকে গাইডেড ট্যুরের মত স্টেশনের রেস্টরুম, নিউজস্ট্যান্ড এবং অপেক্ষার অঞ্চলটি ঘুরিয়ে দেখান।

ডেভিস দ্য স্ট্যান্ড অফ স্টোরি উপন্যাসটি (১৯৯৫) এবং ছয়টি গল্প সংগ্রহের লেখক। ফরাসী ভাষা থেকে করা তাঁর অনুবাদগুলির মধ্যে সোয়ান’স ওয়ে (Swann’s Way,2002) এর নবতম সংস্করণটি এবং ম্যাডাম বোভারি (Madame Bovary, 2010) বিশেষ উল্লেখযোগ্য। লিডিয়া, ২০০৩ সালে ম্যাক আর্থার ফেলোশিপ এবং ২০১৩-র ম্যান বুকার আন্তর্জাতিক পুরষ্কার পেয়েছেন। সাম্প্রতিককালে ফরাসী সরকার তাঁকে অফিসার দে ল 'অর্ড্রে ডেস আর্টস এট দেস লেট্রেস’ উপাধি দিয়েছেন। ২০১৫ এর বসন্তকালে এই সাক্ষাত্কারটি শেষ হওয়ার পরে, ডেভিস তার নরওয়েজিয়ান ভাষায় কাজ চালিয়ে গেছেন এবং সম্প্রতি তাঁর পড়া প্রথম নরওয়েজিয়ান উপন্যাস ডাগ সলস্টাডের লেখা, ডেট ইউপপ্লিজিলেজ এপিস্ক উপাদান এবং টেলিমার্ক আমি পর্যায়ক্রমে 1591-1896 পড়া শেষ করেছেন। - সম্পাদকের কথা ইন্টারভিউ: আপনার বেশিরভাগ গল্পে আপনি মূলত অভিভাবকত্বের নীতিশাস্ত্রকে নিয়ে লিখেছেন উদাহরণস্বরূপ বলা যেতে পারে, "ওল্ড ডিকশনারি" এর কথা, যেখানে দেখা যায় এক মা চিন্তা করছেন যে "যদিও আমার পুত্রটি আমার পুরানো অভিধানের চেয়ে আমার কাছে বেশি গুরুত্বপূর্ণ হওয়া উচিত, তবে আমি বলতে পারি না যে সারাক্ষণ আমি আমার ছেলের সমস্যা সামলাই, আমার প্রাথমিক দায়িত্ব এটা দেখা যেন তার কোনো ক্ষতি না হয়।” এই গল্পের উৎসটা ঠিক কোথা থেকে? ডেভিস ওহ, এই গ্লপের ভাবনা আসে এই ধারণা থেকে যে আমি আমার ছেলের থেকে একটি পুরনো বইয়ের প্রতি বেশী যত্নশীল। ইন্টারভিউর: তাহলে এটা আপনারই গল্প? তা এমন কি প্রায়শই হয়? ডেভিস কোনও গল্পে লেখক তাঁর জীবনের কিছু উপাদান ব্যবহার করলেই আপনি সেটাকে তাঁর জীবন গল্প বলতে পারেন বলে আমার মনে হয় না। যখনই আপনি আপনার জীবন থেকে কোনো উপাদান নির্বাচন করে সেটি সাজিয়ে লেখেন, সেই ঘটনাটি বা সেই অলঙ্কৃত চরিত্রটি আপনার থেকে ভিন্ন। তবে প্রায়শই আমার বাস্তব অভিজ্ঞতা থেকেই একটি লেখা শুরু হয়। আর ঠিক সেখানেই আমি অভিধানের সাথে আছি। তাই তো সাধারণত একটি ধাঁধা, একটি প্রহেলিকা এবং একটি প্রশ্ন থেকে অন্য প্রশ্ন আসাই আমার কাছে যুক্তিগ্রাহ্য বলে মনে হয়। আমি কোন বিষয়কে কেন বেশী গুরুত্ব দেব? তবে আবারও এ সবটাই কিন্তু সাজানো। কারণ আমি অনেক কিছুই উহ্য রাখছি। যা তুলে ধরছি সেটি সম্পূর্ণ চিত্র নয়। সাধারণত, আমি সত্যিই আমার জীবনযাপন নিয়ে সারাক্ষণ পরীক্ষা করে দেখছি। সারাক্ষণ এটি একরকম নিরলস প্রক্রিয়া। শুধু এই নয় যে আমি স্বাস্থ্যকর প্রাতঃরাশ করেছি কি না? সবকিছু। কেউ একজন সারাক্ষণ যেন বিচার করছেন। হতে পারে আমার বেচারী মা যিনি সারক্ষণ আমার মাথায় ঘোরাফেরা করছেন। আমার মা সারাক্ষণ খুঁতখুঁত করতেন আমার মায়ের মাও অমনই ছিলেন। মায়েদের রায় দেওয়ার একটি পরিচিত দীর্ঘ লাইন রয়েছে এবং সেটি কখনও কখনও অত্যন্ত নির্মম লাগে। যেমন আমি যদি কাজ থেকে বিরতি নিয়ে দশ মিনিটের পরিবর্তে আধ ঘন্টা সোফায় বসে কিছু একটা পড়ি বা শুয়ে থাকি সেটা ঠিক কতটা খারাপ ব্যপার? আদেও কি সেটা খারাপ ব্যপার? মনে করুন একজন ভালো মানুষ আপনাকে একটি চিঠি লিখেছেন এবং আপনার পেয়ে ভালোও লেগেছে কিন্তু আপনি দুই মাস উত্তর দেন নি। সোফায় অতিরিক্ত পাঁচ মিনিট অতিরিক্ত শুয়ে থাকা বা পড়ার চেয়ে সেটি স্পষ্টতই অনেক বেশী খারাপ।



(আংশিক)






নীড়বাসনা আষাঢ় ১৪২৮