• পিউ রায়

অনুবাদ কবিতা - সাগর দেখিয়াছ

অহমিয়া কবি দেবকান্ত বরুয়া ছিলেন সংক্রান্তি কালের কবি। স্বদেশ প্রেম, অতীত জয়গাথা, নিঃস্বার্থ মানবপ্রেম ছিল তাঁর কবিতার প্রতিপাদ বিষয়। ইংরেজি কবি রবার্ট ব্রাউনিং এর নাটকীয় স্বগতোক্তির সাথে আধুনিক অসমিয়া যোগ করে ছিলেন এক নতুন মাত্রার সংযোজন। তিনি ছিলেন রোমান্টিক যুগের শেষ আধুনিক কবি।

‘সাগর দেখিয়াছ’ কবিতা টি প্রকাশিত হয়েছিল ১৯৪৭ সালে।

জন্ম ২২ শে ফেব্রুয়ারি, ১৯১৪ ডিব্রুগড়ে

মৃত্যু ২৮ শে জানুয়ারি, ১৯৯৬ দিল্লিতে

সাগর তুমি দেখিয়াছ? দেখ নাই কখনো আমিও দেখিনি যেন শুনিয়াছি তবে নীলম সলীল রাশি বাধাহীন উর্মিমালারা আছে দূর দিগন্তে ছড়িয়ে যেন আমার এই অন্তরখানি সাগরের মতো নীল, বেদনার দেখ নাই কি তুমি? উঠিয়াছে, মরিছে যত বাসনার লাভ ঢেউ আমারই স্মৃতির সীমা চুম্বন শুনিয়াছ কি? আমার সাগরের তুমি শুনিয়াছ কি ঝড়ের উচ্ছল সংগীত, বোঝ নাই - অনুভব কর নাই, বাগানে আজ বসন্তের বাতাসের মৃদু ইশারা দেখিতেছো রামধনু? বর্ষার মেঘের আড়ালে এ যেন মোহন গৌরব প্রেমের আলোয় দীপ্ত আমার মন আকাশে দেখিছো রঙের উৎসব? মাঝরাতে ঘুম ভাঙিয়া শুনিয়াছ কখনো কোকিলের হৃদয় ভাঙা গান ভাবিয়াছ পাখির গলায় দলা পাকানো কান্না মানুষের বুকের সংবাদ আমি জানি, তুমি কি জান ওগো আমার হৃদয়হীনা প্রিয়া তুমি জান শুধু তুমি, তুমি, আমি আমি, তুমি তো জান না হায় কেন গো আমি কি গাঁথিবো বুঝি পরে যাওয়া মালতী নিয়ে যায় জয়ের গৌরব মালা? মিলনের সুবর্ণ প্রাসাদ আমরা সাজায়ইবো কেন পৃথিবীময় দুঃখের কাদন? হৃদয়ের রাঙা রক্ত ঢালিয়া প্রতিমার চরণ ধুই কেন তুমি বুঝবে না সখী কি বেদনায় ষষ্ঠীতে প্রতিষ্ঠা হইয়া দেবীকে বিসর্জন দিয়া আমরা বিজয়ার বিফল সন্ধ‍্যায় সাঁঝ নামিয়াছি থাক সে কথা জ্বালাইয়ও না প্রদীপ দুই নয়নের আলোই আজ নাশ করিবে তিমির তুমি অন্ধকার আমার জগতের।.

নীড়বাসনা আষাঢ় ১৪২৮