• কুমকুম চৌধুরী

কবিতা - উন্মাদ কলম

তোমার ঐ অনুভবী চোখ তবে আমারই হোক

সাদা পাতায় তোমার অভিমানী কলম আরো উন্মাদ হোক।

রাষ্ট্র লেখ, ধর্ষণ লেখ, খিদে লেখ, লেখ অসম প্রেম, লেখ সময়

তোমার প্রতিটা রন্ধ্রের ছত্রে ছত্রে আমায় লেখ

কালির পরিবর্তে আমার রক্ত নিও

শব্দের আলোয় আমার পাপ ধুয়ে দিও

আমি আরো পূর্ণ হই,পরিণত হই

আরো গভীর হই, স্নিগ্ধ হই।

রাষ্ট্রের চোখে চোখ রেখে সাহসী হয়ে উঠি

লাল চোখ,সময়ের উদ্ধত আঙুল ভেঙে গুঁড়িয়ে দিই।

খিদের পৃথিবীতে তুমি সাদা ভাত আঁক,

আমি চিৎকার করে বলি

"এই ..ভোট দিয়েছি ভাত দে"

তোমার কলম গর্জে উঠুক

শহীদ মিনারের পাশে

তোমার কলম গর্জে উঠুক

তিলোত্তমার পথে ঘাটে

তোমার কলম গর্জে উঠুক

ধর্ষিতার ছিন্ন শরীরে।

কলমের খোঁচায় শত ছিদ্র কর

আইনের কালো দৃষ্টি বন্ধনী।

তুমি শুধু আঁচড় কাটো বিপ্লবে

তোমার হয়ে মিছিলে হাঁটব আমি

মোমের আগুন হয়ে জ্বলব

সময়ের চোখে চোখ রেখে প্রতিবাদ লিখে আসব।

উন্মাদ কলমের প্রতি চিৎকার লিখো আমার রক্তকণা দিয়ে,

তোমার কলমের প্রেম যেন হয় আমার প্রতিটি স্বেদবিন্দু দিয়ে।

ঘামের বিন্দু আর রক্তকণা

বড় দামি এই দেশে

ঘাম দিয়ে চাষা বাইছে লাঙ্গল

রক্ত দিয়ে শ্রমিক গড়ছে চোখ ধাঁধানো মল

ঘামে হেঁটেই বুনে ফেল কবি

আমাদের আমরা হওয়ার জমি।

রোদে পোড়া দুপুর কিংবা শ্রাবণ সিক্ত

প্রতি মুহূর্তে রেখে যাই তোমার আবিষ্কারের ছাপ।

ভালোবাসা খুঁড়ে খুঁড়ে আমি একলা প্রত্নতাত্ত্বিক

তোমার কলমেই লেখা হোক

আমার মৃত্যু বানের জপলিপি।



কবি পরিচিতি - কুমকুম চৌধুরী একজন কবি আবার বাচিক শিল্পীও। মুর্শিদাবাদ জেলার গোকর্ন গ্রামের এক মধ্যবিত্ত পরিবারে ১৯৯৩ সালে তাঁর জন্ম। একজন উচ্ছল প্রাণের, মুক্তমনা, সদা হাসিখুশি, আনন্দময়ী, বাস্তববাদী, কল্পনাপ্রবণ, ভাবুক প্রকৃতির, আদর্শবাদী ও আত্মবিশ্বাসী গৃহবধু। কবিতা লেখার পাশাপাশি গল্প লেখা ও কবিতা আবৃত্তির প্রতিও সমান ভাবে আগ্রহী। বর্তমানে বিভিন্ন পত্রিকা সহ, নানান ওয়েব পোর্টালের সাথে নিজেকে যুক্ত রেখেছেন।


নীড়বাসনা আষাঢ় ১৪২৮